Open Source - tuts nano

“ওপেন সোর্স” (Open Source: উন্মুক্ত সোর্স, মুক্ত সোর্স) মানে হচ্ছে, সোর্সকে উন্মুক্ত করে ছেড়ে দেয়া। কথাটির বিপরীত শব্দ হচ্ছে “সংরক্ষিত সোর্স” (Closed Source)।

ওপেন সোর্স মানে ফ্রি না

কিংবা

উন্মুক্ত সোর্স মানে মাগনা না

কথাটা শুনেছি, বুঝেও ফেলেছি…

কিন্তু সত্যি বলতে কি, বুঝে ফেলার ভান করলেও, কিংবা বুঝে ফেললেও আসলে কিন্তু কিচ্ছুই বুঝতে পারিনি – এটা বুঝতে পারলাম, যখন এবিষয়ে কথা বাড়াতে গিয়ে এখানে-ওখানে ধাক্কা খাচ্ছিলাম।

  • উইন্ডোজ একটা সফ্‌টওয়্যার, যা কিনে নিতে হয়, এটা ওপেন সোর্স না। বাংলাদেশের বিজয় কীবোর্ড কিন্তু এরকমই একটা সফ্‌টওয়্যার, যা সংরক্ষিত সোর্স এবং কিনে ব্যবহার করতে হয়।
  • উবুন্ত‌ু একটা সফ্‌টওয়্যার, যা ফ্রি পাওয়া যায়, মানে মাগনা, আবার এটা ওপেন সোর্স। বাংলাদেশের অভ্র ফোনেটিক কীবোর্ড কিন্তু এরকমই একটা সফ্‌টওয়্যার, যা উন্মুক্ত সোর্স এবং বিনামূল্যও।

হিসাবটা এখানে মিলে না, তাই শিখাও হয় না।

অবশেষে লজ্জার মাথা খেয়ে যখন প্রশ্নটা শাবাব ভাইকে (Shabab Mustafa) এক সাক্ষাতে করেই ফেললাম, তখনই আসলে সত্যিকার অর্থে শিখলাম। যা শিখলাম, সেটাকে ভেঙে বলি:

Continue reading

গিটহাবে প্রোজেক্ট রিলিয দেয়া - tuts nano

Github.com আমাদেরকে সামাজিকভাবে কোডিং করার একটা ধারণা দেয়। এই সাইট ব্যবহার করে আমরা বন্ধু, সহকর্মী, গুরু এমনকি অজানা কারো সাথেও সামাজিকভাবে কোড করতে পারি। অধিকাংশ গিটহাব প্রোজেক্টই উন্মুক্ত সোর্সের, কারণ প্রোজেক্টগুলো প্রাথমিকভাবেই জনসমক্ষে উন্মুক্ত। তবে আপনি প্রাইভেট রেপোযিটোরিও তৈরি করতে পারেন, কিন্তু সেগুলো বিনামূল্য নয়। উন্মুক্ত কিংবা প্রাইভেট – যাই হোক, গিটহাবে তোলা অধিকাংশ গুছিয়ে নেয়া পণ্যও এর ডেভলপার কিংবা মালিক রিলিয করেন না। তাই আজকে আমরা দেখার চেষ্টা করবো, কিভাবে গিটহাব প্রোজেক্টকে রিলিয করতে হয়।

ধরা যাক, আপনার গিটহাব রেপোযিটোরিটাই আপনার প্রোজেক্ট। এবং আপনি এখন এর 1.0.0 সংস্করণের কাজ করছেন। আরো কয়েকজনও কমিট করছেন এই রেপোযিটোরিতে। এবারে আপনারা সবাই ঠিক করলেন এই প্রোজেক্টটির 1.0.0 সংস্করণটি রিলিয করবেন। তো এপর্যায়ে আপনারা আপনাদের কমিট করা শেষ করলেন এবং রিলিযের জন্য প্রস্তুতি নিলেন।

রিলিয দেয়ার গিট পদ্ধতি

git ব্যবহার করে প্রোডাক্ট রিলিয দেয়ার পদ্ধতি হচ্ছে git tag। কমান্ডলাইনে (git bash ব্যবহার করে) কাজটা করার উপায় হচ্ছে:

git tag -a v1.0.0 -m "First Release"

এতে যেটা হবে সর্বশেষ কমিটে v1.0.0 ট্যাগটি জুড়ে যাবে। এবারে কমান্ডলাইনে ট্যাগ পুশ করে দিলেই গিটহাবে একটা ট্যাগ তৈরি হয়ে যাবে।

git push -u origin --tags

কিন্তু এতে রিলিয নোট লেখা হবে না। তাই ট্যাগ তৈরি এবং রিলিয দেয়ার জন্য গিটহাব-এ রয়েছে রিলিয ফিচার:

কিভাবে রিলিয করতে হয়

Continue reading

অন্যান্য টিউটোরিয়াল

জ্ঞানস্তর: প্রাথমিক

ইংরেজি মুভি দেখতে বসেছি, কিন্তু তবু ইংরেজিটা বুঝতে পারছি না, কারণ হলিউডের মুভি দেখতে দেখতে অ্যামেরিকান ইংরেজিতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ায়, চিফ ব্রিটিশ ইংরেজি সহজে বুঝতে পারছি না, মুভিটার নাম: Sherlock Homes। তাই খুব সহজে গুগল করলাম প্রয়োজনীয় সহায়তার জন্য, এবং কিছুক্ষণের মধ্যে ছোট্ট একটা ফাইল নামিয়ে ভিডিও প্লেয়ারেই চলচ্চিত্রের কথাগুলো নিচে লেখা অবস্থায় দেখতে পেলাম – একে চলচ্চিত্রবিদ্যায় কী বলা হয় জানি না, তবে আমরা সাধারণ মানুষ একে ‘সাবটাইটেল’ হিসেবে জানি।

চলচ্চিত্রে দেখা যাবে বাংলা সাবটাইটেল, তৈরি করবো নিজেই :)

চলচ্চিত্রে দেখা যাবে বাংলা সাবটাইটেল, তৈরি করবো নিজেই 🙂

সাবটাইটেল ফাইল পরিচিতি:

সাবটাইটেল ফাইলগুলোর এক্সটেনশন হলো SRT (*.srt)। ফাইলের নাম যা ইচ্ছা হতে পারে, ভিডিও প্লেয়ারে ভিডিওটি চালু করে এসআরটি ফাইলটি লোড করে দিলেই হয়, সময় বুঝে বুঝে সে ভিডিও চলার সাথে সাথে নিচে সাবটাইটেল দেখাতে থাকবে। এই ফাইলগুলোতে শুধু লেখা বা অক্ষর থাকে বলে এগুলোর আকার হয় যথেষ্ট কম, মাত্র কয়েক কিলোবাইট।

সাবটাইটেল ফাইলের কার্যপদ্ধতি:

দেখা যাক একটা সাবটাইটেল ফাইল কিভাবে কাজ করেContinue reading